সুনামিতে ৪ শিশুর মৃত্যুর জন্যে কিন্ডারগার্টেন কর্তৃপক্ষই দায়ীঃ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে জরিমানা প্রদানের নির্দেশ
টোকিও-এইদেশ, রবিবার, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৩


মঙ্গলবার জাপানের একটি আদালত ২০১১ সালের ১১ মার্চে সুনামির আঘাতে একটি কিন্ডারগার্টেনের শিশুদের মৃত্যুর জন্যে কিন্ডারগার্টেন কর্তৃপক্ষকে দায়ী করে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার গুলোকে ১৭ কোটি ইয়েন জরিমানা প্রদানের নির্দেশ দিয়েছে। ভূমিকম্পের পর কিন্ডারগার্টেন কর্তৃপক্ষ শিশুদেরকে বাসে করে সুনামির পথে তাদের বাড়িতে পাঠায়।

ভয়াবহ ভূমিকম্প আঘাত হানার কয়েক মিনিট পরেই মিয়াগি প্রিফেকচারের ইশিনোমাকি শহরে একটি পাহাড়ের উপর থাকা বেসরকারি হিইয়োরি কিন্ডারগার্টেনের কর্মীরা শিশুদেরকে সুনামির দিকে যাওয়া একটি সড়কে বাড়ি পাঠায়, সড়কটি পরবর্তীতে সুনামির কবলে পড়ে।

সুনামির বিশাল ঢেউ বাসটিকে ভাসিয়ে নিলে ৫ শিশু এবং ১ মহিলা নিহত হন। বাসটি সাগর পাড়ের রাস্তা ব্যবহার করছিলো। পরে বাসটি ঘুরিয়ে নেয়ার সময় সুনামির ঢেউ গ্রাস করে। বাস চালক প্রাণে বেঁচে যান। ৪ শিশুর পরিবার কিন্ডারগার্টেন কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

সেন্দাই জেলা আদালত কিন্ডারগার্টেন কর্তৃপক্ষ এবং সে সময়ে কর্তব্যরত প্রধান শিক্ষককে যৌথ ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার গুলোকে ১৭ কোটি ইয়েন প্রদানের নির্দেশ দেয়।

১১ মার্চের বিপর্যয়কে কেন্দ্র করে উত্তর-পূর্ব জাপানে কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এ ধরণের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা এটিই প্রথম।

কিন্ডারগার্টেন কর্তৃপক্ষ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তারা শিশুদের প্রাণহানির জন্যে দুঃখিত কিন্তু সুনামি এতো বড় হবে সেটা জানা অসম্ভব ছিলো এবং শিশুদেরকে বাড়ি পাঠানোর সিদ্ধান্তই সঠিক ছিলো।

তবে আদালতের প্রধান বিচারক নোরিও সাইকি বলেন, "শক্তিশালী ভূমিকম্পটি অন্ততঃ ৩ মিনিট স্থায়ী হয়ে ছিলো তাই কিন্ডারগার্টেন কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব ছিলো রেডিও এবং অন্যান্য মিডিয়ার মাধ্যমে সুনামি সম্পর্ক ভালোমতো জেনে ব্যবস্থা গ্রহণ করা।"

"কিন্ডারগার্টেন তথ্য সংগ্রহ করতে ব্যর্থ হয় এবং বাসকে সাগরের দিকে পাঠায়, যার ফলে শিশুদের জীবন বিপন্ন হয়েছে" তিনি বলেন।